উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■- নড়াইলে আনন্দ শোভাযাত্রায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় শহীদ এখলাছ উদ্দীন আহম্মেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাত শিক্ষার্থী, তিন শিক্ষকসহ ১১ জন আহত হয়েছেন। আজ বেলা ১১টার দিকে কালিয়া উপজেলার কুলশুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বাসচালক, মালিক ও হেলপারকে আটক করেছে পুলিশ। আহতদের কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমুল হুদা এবং কালিয়া উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার শারাফাত হোসেন আহতদের খোঁজ-খবর নেন। শহীদ এখলাছ উদ্দীন আহম্মেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অলোক কুমার সাহা নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, স্বল্পোন্নত থেকে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বৃহস্পতিবার কুলশুর বাজার এলাকা থেকে আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। এ সময় যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্টো-চ-৫৬৮৮) গতিরোধ না করে শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সড়কের দুই পাশে দাঁড়িয়ে থাকা জনসাধারণকে ধাক্কা দেয়। বাসটি কালিয়ার বড়দিয়া থেকে খুলনা যাচ্ছিল। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন-শহীদ এখলাছ উদ্দীন আহম্মেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বিঞ্চুপদ পাল ও শেখ সাঈদ এবং দশম শ্রেণির ছাত্র ভাউড়িরচর গ্রামের আমিন খান, হুসাইন ও নিরব বালাসহ সাত শিক্ষার্থী। এছাড়া কুলশুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক রেজাউল করিম ও কুলশুর গ্রামের ভ্যানচালক সাইফুল সরদার (২৮) গুরুতর আহত হয়েছেন। ভ্যানচালক সাইফুল হাসপাতালের বিছানায় কাতরাতে কাতরাতে বলেন, বেপরোয়া বাসটি কোনো বাঁধা মানেনি। বিদ্যালয়ের আনন্দ অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ধাক্কা দিয়ে রাস্তা থেকে ফেলে দেয়। ঠেকাতে গেলে বাসের হেলপার আমাকে মারধর করে। ওরা খুব নিষ্ঠুর আচরণ করেছে। এ ঘটনায় সচেতন নাগরিক সমাজ এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা বাসচালকসহ জড়িতদের যথাযথ শাস্তি দাবি করেন। এদিকে, এ ঘটনায় বাসের মালিক ইয়াকুব আলীসহ চালক ও হেলপারকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া বাসটিকে জব্দ করা হয়েছে।#

(Visited 1 times, 1 visits today)

সম্পাদক ও প্রকাশক

কাজী জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

ই-মেইল: jahangirbhaluka@gmail.com
নিউজ: bsomoy71@gmail.com

মোবাইল: ০১৭১৬৯০৭৯৮৪

%d bloggers like this: