আদমদীঘিতে আগুনে পুড়ে পিতার মৃত্যু মা অগ্নিদগ্ধ পুত্র আটক
তরিকুল ইসলাম জেন্টু,আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার আদমদীঘির কুশাবাড়ীর মন্ডলপাড়ায় গতকাল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে নিজ শয়ন ঘরে আগুনে দগ্ধ হয়ে পিতা হামিদুল (৫০) নিহত হয় এবং মাতা হাফসা বিবি (৪৫) দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এঘটনায় পুলিশ নিহতের ছেলে রহিদুল (৩০) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছেন। পুলিশ নিহত হামিদুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরন করেন। রির্পোট লেখা পর্যন্ত মামলার প্র¯‘িত চলছে। মর্মাতিক এই হত্যার ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এক নজর দেখতে শত শত নারী পুরুষ ভির জমায়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বগুড়ার নন্দীগ্রামের উপজেলার আগাপুর গ্রামের হামিদুল ইসলাম আদমদীঘির কুশাবাড়ী গ্রামের ময়েজ উদ্দীনের মেয়েকে বিয়ে করে শ্বশুড় বাড়ীতে দীর্ঘ প্রায় ১৪/১৫ বছর যাবত বসবাস করে আসছে। হামিদুল ইসলামের ছেলে রহিদুল ইসলামকে ৫/৬ বছর পূর্বে গজারিয়া গ্রামের আব্দুর রহিমের মেয়ে মর্জিনা বেগমের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে রহিদুলের স্ত্রীর সাথে বুনিবনা না হওয়ায় গত ৩/৪ মাস পূর্বে রহিদুল তার স্ত্রী মর্জিনাকে মৌখিক ভাবে তালাক প্রদান করেন। এরপর স্ত্রীকে পুনরায় সংসারে ফিরে নিতে কয়েক দফা বৈঠক বসে। রহিদুলের বাবা হামিদুল ইসলাম তাতে রাজি হয় না।

জানাযায়,গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে রহিদুল বাজার থেকে ডাব কিনে নিয়ে এসে রাতের খাবার শেষে তার বাবা মাকে ডাব খাওয়ায় পর রহিদুল তার পাশের ঘরে ঘুমাতে যায়। রাত ১ টার সময় নিহত হামিদুলের স্ত্রীর চিৎকার শুনতে পেয়ে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে এসে দেখতে পায় হামিদুল আগুনে পুড়িয়ে মারা গেছে এবং তার স্ত্রী হাফছা বিবি দগ্ধ অবস্থায় ছটফট করছে। এসময় পাশের ঘরে থাকা তার ছেলে রহিদুল বাড়ীতে নেই। পিতার মৃত্যুর কয়েক ঘন্টা পর ঘটনাস্থলে পৌছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল জলিল মন্ডল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। অফিসার ইনচার্জ আবু সায়িদ মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান আটকের কথা নিশ্চিত করেন।#

(Visited 1 times, 1 visits today)

সম্পাদক ও প্রকাশক

কাজী জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

ই-মেইল: jahangirbhaluka@gmail.com
নিউজ: bsomoy71@gmail.com

মোবাইল: ০১৭১৬৯০৭৯৮৪

%d bloggers like this: