মোঃ আফজাল হোসেন ফুলবাড়ী দিনাজপুর প্রতিনিধি–ফুলবাড়ী উপজেলার বেতদীঘি ইউপির ইউনিয়ন ভূমি অফিসে জমির মালিক ৬ মাস ঘুরেও প্রভাবশালী মহলের চাপে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুস সাদেক খাজনা নিতে অপরগতা প্রকাশ করেন।
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার বেতদীঘি ইউপির সাহাপুর (চিন্তামন) গ্রামের মৃত আবুল হোসেন এর পুত্র মোঃ মামুনুর রশিদ মানিক এর অভিযোগে জানা যায়, সাহাপুর মৌজার জেএল নং ১৩২ খতিয়ান নং ৫, দাগনং-৫০০, ১ একর ৩১ শতক এর মধ্যে ৫০০/৬৪৯ মোট জমির পরিমান ৮১ মোট ২.১২একর পুকুর, ৫৮ খতিয়ানে, দাগ নং-৩৯৯, ১.০৬ একর এর মধ্যে মোট ৭৪ শতক, ৫৯ খতিয়ান, দাগনং-৪১৮,৩৯৬,৩২৩,৩২৮,৩৯৯/৬৫৫ দাগে মোট ১.১৬ একর, ৮ খতিয়ানে ৩৩৩ দাগে দলা ২৫ মধ্যে সাড়ে ১২, ৯৭ খতিয়ানে ৪০৮ দাগে ৪০ মধ্যে ২০ শতাংশ, ১২ খতিয়ানে ৪০৩ দাগে পুকুর ৫০ মধ্যে ৩, ৩ মধ্যে দেড়, ৮১ খতিয়ানে মৌজা চিন্তামন জেএল নং- ১২৫, মোট ৫১৭ দাগে ২১ মধ্যে ৩, ৩ মধ্যে দেড় শতাংশ জমি ওয়ারিশ সূত্রে মামুনুর রশিদ মালিক হয়ে দীর্ঘ দিন ধরে চাষাবাদ করে ভোগদখল করে আসছেন।
গত ১১/০৯/২০১৯ ইং সালের ভূমি উন্নয়ন কর যাহার ক্রমিক নং-১৭০৬৪৬ উক্ত তারিখ হইতে জমির খাজনা পরিশোধ করার পর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুল সাদেক বাকী সম্পত্তির খাজনা জমির মালিক মামুনুর রশিদ মানিক দিতে গেলে খাজনা নেওয়া যাবে না বলে যানান। গত ১৮/০৩/২০২০ ইং তারিখে জমির মালিক মামুনুর রশিদ মানিক বাদি হয়ে ফুলবাড়ী সহকারী কমিশনার ভূমি বরাবর ভূমি উন্নয়ন কর বরাবর নামজারী কারণের জন্য আবেদন করেন। উল্লেখ্য যে, ভূমি সহকারী কর্মকর্তা দীর্ঘ ৬ মাস যাবত ভূমি উন্নয়ন কর নিব, নিচ্ছি বলে কাল ক্ষেপন করে আসছেন।
গত ১৫/০৩/২০২০ ইং তারিখে মোবাইল ফোনে সহকারী কমিশনার ভূমি ফুলবাড়ীকে বিষয়টি অবগত করি। গত ১৬/০৩/২০২০ ইং তারিখে আনুমানিক দুপুর সাড়ে ১২ টায় মামুনুর রশিদ মানিক ভূমি অফিসে খাজনা দিতে গেলে প্রতিপক্ষদেরকে ডেকে এনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। তিনি জানান ৪ লক্ষ ১৯ হাজার ২৪৪ টাকা খাজনা পরিশোধ করতে হবে। জমির মালিক মামুনুর রশিদ মানিক ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে জানান আমার অংশে যতটুকু রাজস্ব আসে সেই টুকু পরিশোধ করব। কিন্তু ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা প্রতিপক্ষের যোগসাযোসে তাকে অযথা হয়রানি করছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, কোন অপশক্তি ক্ষমতার বলে রাষ্ট্রীয় কর থেকে রাষ্ট্রকে বঞ্চিত করছে আর আমাকে করছে হয়রানি।
এ বিষয়ে ফুলবাড়ী সহকারী কমিশনার ভূমি কর্মকর্তা কার্ণিজ আফরোজ এর সাথে গতকাল বুধবার যোগাযোগ করলে তিনি সাংবাদিককে জানান, দুপক্ষকে নোটিশ জারি করে কাগজপত্র যাচাই করে রায় প্রদান করা হবে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

সম্পাদক ও প্রকাশক

কাজী জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

ই-মেইল: jahangirbhaluka@gmail.com
নিউজ: bsomoy71@gmail.com

মোবাইল: ০১৭১৬৯০৭৯৮৪

%d bloggers like this: