মাজহারুল ইসলাম,রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের, সীমান্তঘেষা এলাকার ১০টি গ্রামের ৫০ হাজার মানুষের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাঁকো।
উপজেলা শহর থেকে দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তবর্তি ১০টি গ্রামের দূরত্ব প্রায় ২০ কিলোমিটার।
যুগযুগ ধরে ভারত থেকে বয়ে আসা, জিনজিরাম নদ দ্বাড়া বিচ্ছিন্ন বেকরীবিল, খেয়ারচর, চুলিয়ারচর, আলগারচর, চরলাঠিয়াল ডাঙ্গা, চর লাঠিয়াল ডাঙ্গা, বাগানবাড়ী, ও বালিয়ামারী, নয়াপাড়াসহ ১০টি গ্রামের ৫০ হাজার মানুষ, একটি ব্রীজের অভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। প্রতিবছর ১০ গ্রামের মানুষ স্বেচ্ছা-শ্রমে নিজস্ব অর্থায়নে বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেন যাতয়াত করে থাকে। সারা-দেশে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের জোওয়ারে ভাসলেও রৌমারী উপজেলায়, স্বাধীনতার ৪৮ বছর হলেও এসব অঞ্চলে আজও উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি। সামুয়িকভাবে মানুষ চলাচলের ব্যাবস্থা হলেও, মোটর সাইকেল, অটোরিক্সা, ভ্যান, ভটভটিসহ অন্যান্য যানবাহন চালনায় মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছে।
সরেজমিনে ওই অঞ্চলের মানুষের সাথে সাক্ষাৎকারে জানাযায়, নির্বাচন এলেই সংসদ সদস্য প্রার্থী, এবং চেয়ারম্যান প্রার্থীরা এঅঞ্চলে উন্নয়নের জোওয়ার বয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি গেয়ে যায়।নির্বাচন শেষে তাদের মাঠে দেখা যায়না। সীমান্ত ঘেষা মানুষ গুলো জিনজিরাম নদ দ্বাড়া যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন আতংকিত জীবন যাপন করে থাকেন। সীমান্তে দূর্ঘটনা ঘটলেও অতিসহজে দুরুত্ব পুলিশ বিজিবি ঘটনা স্থলে যেতে পারেনা।ভুক্তভোগী এলাকাবাসীরা হলেন আলহাজ¦ হাছেন আলী (৯০), মুক্তিযোদ্ধা আজিম উদ্দিন (৮৫), বানেছা খাতুন (৮০), তোফাজ্জল হক, আঃ ছাত্তার দেওয়ানী (৯৫), চর পাহার তলী প্রাথমকি বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রাসিদা খাতুন (৫৫), আব্দুল মজিদ (৬৬),লাল চানঁ (৫৫)সহ আরও অনেকেই জানান দেশ স্বাধীন পেয়েছি দীর্ঘ ৪৮টি বছর অতিবাহিত হতে যাচ্ছে।দুখের বিষয় শুধু একটি ব্রীজের দাবী করেই গেলাম কিন্তু বাস্থবায়ন পেলাম না। দেশের সবস্থানেই উন্নয়নের জোয়ার বইছে কিন্তু এই এলাকায় উন্নয়নের ছোয়াও লাগেনী।উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের চর লাঠিয়াল ডাঙ্গাসহ ১০টি গ্রামের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা যেভাবে জীবনের ঝুঁিক নিয়ে পারাপার হচ্ছে কখন যেন কি হয় বাস্থবে না দেখলে বুঝা যাবেনা।চর-লাঠিয়াল ডাঙ্গা জিনজিরাম নদী পারাপারে ব্রীজ নির্মাণ বিষয় উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল্লাহ বলেন ওখানে একটি ব্রীজের বিশেষ প্রয়োজন সরকারে কাছে জরুরী ভিত্তিতে জিনজিরাম দনীর উপর একটি ব্রীজের দাবী জানিয়ে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করবো।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল ইমরান চর লাঠিয়াল ডাঙ্গা জিনজিরাম নদীর উপর দীর্ঘদিনের দাবী জানিয়ে আসছে ওই এলকার হাজারও মানুষ সেবিশষ তিনি বলেন আমি আমার উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে অবগত করে এর একটা ব্যবস্থা নেবো।

(Visited 1 times, 1 visits today)

সম্পাদক ও প্রকাশক

কাজী জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

ই-মেইল: jahangirbhaluka@gmail.com
নিউজ: bsomoy71@gmail.com

মোবাইল: ০১৭১৬৯০৭৯৮৪

%d bloggers like this: