রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সভাপতি পদ নিয়ে তিনি এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে ধরাকে সরা জ্ঞান করে চলেছেন। বিপুল অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।
অপরদিকে, বাবার পদের ক্ষমতার বলে ছেলে শুভ আহমেদ সরকার ক্যাডার বাহিনীর মাধ্যমে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন। জোর পূর্বক ভূমি দখল ও চাঁদা আদায় সহ রয়েছে বিভিন্ন অভিযোগ। এলাকায় তাদের ভয়ে কেউ কিছু বলার সাহস রাখে না। সরকার বংশের হাত থেকে পরিত্রাণের দাবিও তুলেছেন রাজীবপুরের বহু বাসিন্দা।
জানা গেছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকবর হোসেন হিরোর স্থলাভিসিক্ত হন। ২০13 সালের শেষের দিকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পদ লাভ করেন। এরপর পর থেকে তিনি সন্ত্রাসী ক্যাডার বাহিনী গড়ে রাজীবপুরে দাপটের সাথে চষে বেড়াচ্ছেন। তার দাপটে উপজেলা আওয়ামী লীগ কিছুটা সামনের দিকে এগিয়ে যায়। কিন্তু গত 5/6 বছর থেকে তিনি একলা চল নীতি অবলম্বন করতে থাকেন।
ক্ষমতার দাপটে ও বেপরোয়া চলাফেরায় ভয়ে এলাকায় কেউ কিছু বলার সাহস পায় না তার ও তার পোষা ক্যাডার বাহিনীর বিরুদ্ধে। এতে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়ায় ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা তার উপর থেকে সব রকম আস্থা হারিয়ে ফেলেন। তিনি নানা রকম কৌশলে এবং তার পার্শ্বে ও সাথে থাকা কতিপয় ব্যাক্তিদের কু-পরামর্শে অবৈধ পন্থায় অবৈধভাবে টাকা হাতিয়ে নিয়ে নামে বেনামে অঢেল সহায়-সম্পদ অর্জনসহ মাত্র 5/6 বছরের ব্যবধানে উপজেলার কোটিপতি বনে গেছেন।
জোরপূর্বক উপজেলার সরকারি কর্মকর্তাদের তার কথা মত দায়িত্ব পালনে বাধ্য করেন তিনি। এবং বর্তমানেও তা অবলীলায় করতে বাধ্য করা হয়ে থাকে বলে অনেকে মুখ ফুটে বলতে পারেন না। রাজীবপুর বাসির মুখে একটা প্রবাদ শুনা যায়- ‘উপরে আল্লাহ, নিচে সরকার, মাঝে পরে আমরা গড়াগড়ি খাচ্ছি সমান তালে’।
সাবেক এমপি রুহুল আমীন সংসদ সদস্য হওয়ার পর রাজীবপুরের জন্য যতগুলো বরাদ্দ পেয়েছেন সবগুলো আব্দুল হাই সরকারক দিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। সরকারি গুদামে ধান, চাল, গমসহ প্রায় সবকিছু আব্দুল হাই সরকার নিজে এবং তার বাহিনীর সদস্যরা সরবরাহ করে থাকেন। পল্লী বিদ্যুতায়তনের সংযোগ দেয়ার নামে এলাকাবাসীর কাছ থেকে চুক্তিভিত্তিক টাকা নেয়া। এমনকি বিভিন্ন সরকারি পুকুর, দিঘী লিজ দেয়ার নামে উপজেলা থেকে আব্দুল হাই সরকার নিজ নামে নিয়ে নামমাত্র টাকা দিয়ে বেশি টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন জনের মধ্যে বন্দোবস্ত করে দেন। যেন নিজেই বড় প্রশাসক সেজে বসেছেন।
বাবার সভাপতি পদের ক্ষমতার বলে ছেলে শুভ আহমেদ সরকার ক্যাডার বাহিনীর মাধ্যমে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছেন। একটা প্রবাদ শোনা যায়- ‘আমি শুভ সরকার, এই এলাকাই রাজত্ব চলবে শুধু আমার’। শুভ সরকার তার রাজত্ব পরিচালনা করতে যা খুশি তাই করে যাবে। এ যেন মগের মুল্লুক! এলাকাবাসী তা দেখেও মুখ বন্ধ করে থাকে অজানা আতঙ্কে মান-সম্মানের ভয়ে। সহ্য করে থাকা ছাড়া যেন আর কোন উপায় নেই। কেউ কিছু বললে তাকে তার পোষা ক্যাডার বাহিনী জোরপূর্বকভাবে মুকুল প্রভাষকের বাড়ির নিকট তার কথিত টর্চার সেলে নিয়ে গিয়ে মারপিট করে অর্থ হাতিয়ে নেয়া সহ বাপ বয়সি মানুষকেও কান ধরে ওঠবস করতে বাধ্য করে থাকেন।
গত ইদুল আযহার তিন দিন আগে সামান্য কথা কাটা-কাটির জের ধরে আওয়ামীলীগ নেতা মশিউর রহমান রতনকে কুপিয়ে জখম করে শুভ সরকারের সন্ত্রাস বাহিনী। যা নেতৃত্ব দেয় শুভ সরকার! যা স্থানীয়রা অবগত আছেন।
মাত্র 5/6 বছরের ব্যবধানে কোন আলাউদ্দিনের চেরাগের বলে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে বটগাছ বনে গেছেন আব্দুল হাই সরকার তা আজ সচেতন রাজীবপুর বাসীর প্রশ্ন। দূর্নীতি করে অর্থ সম্পদের মালিক হলেও সেদিকে দুদকের কর্মকর্তাদের যেন কোন ভ্রুক্ষেপ নেই।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক রফিকুল ইসলাম মুকুল ক্ষোভের সাথে বলেন, ক্ষমতার অপব্যবহার করে সভাপতি নিজে ও তার ছেলে শুভ, মিশু, ভগ্নিপতি কবির ও খবিরকে সাথে নিয়ে দূর্নীতি লুটপাট, টেন্ডারবাজী, চাকুরি, নিয়োগ বাণিজ্যের মাধ্যমে সিন্ডিকেট করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সভাপতি হওয়ার আগে যে ওষুধ খাওয়ার মত টাকা পেত না এখন সে বাড়ি-গাড়িসহ অঢেল অর্থ সম্পদের মালিক।তিনি আরো বলেন, আব্দুল হাই সরকার কখনোই আ’লীগ করেনি। সে বি,এন,পি পরিবারের সন্তান।ইউপি সদস্য আজাদ খান বলেন, শিশু ও পাগল ছাড়া রাজীবপুরের সবাই বলবে তার দূর্নীতির পাহাড় সমান সম্পদ। অন্যায় ভাবে এ সম্পদ অর্জনে তার ন্যায্য বিচার হওয়া উচিত। বর্তমান সরকারের দু’দফায় সে এ সম্পদ অর্জন করেছে। শত বাধা বিপত্তি দিয়েও আমরা কিছু করতে পারিনি। কারণ উপরে তার অনেক বড় শক্তিশালী এক অদৃশ্য হাত রয়েছে।
আব্দুল হাই সরকারের ব্যবহৃত মোবাইল 01716234384 নম্বরে কয়েকদিন যাবৎ ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার কোন মন্তব্য বা বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

(Visited 1 times, 1 visits today)

সম্পাদক ও প্রকাশক

কাজী জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

ই-মেইল: jahangirbhaluka@gmail.com
নিউজ: bsomoy71@gmail.com

মোবাইল: ০১৭১৬৯০৭৯৮৪

%d bloggers like this: