মাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ে ভুল অপারেশনে আতিকা (৯) নামে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
আতিকা জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের গোয়ালকারী গ্রামের আতিকুর রহমানের মেয়ে। সে ডাঙ্গীবাজারে বিপ্লব মেমোরিয়াল স্কুলের ৩য় শ্রেণির ছাত্রী। গতকাল শনিবার রাতে ঠাকুরগাঁও শহরের এলিজা নার্সিং হোম এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে অপারেশন থিয়েটারে এ ঘটনা ঘটে। অপারেশনের সময় শিশুটিকে অতিরিক্ত এনেসথেসিয়ার (অজ্ঞান) ঔষধ প্রয়োগ করার কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ তার বাবা আতিকুর রহমানের। তিনি বলেন, অপারেশনের জন্য আমার মেয়েকে অজ্ঞান করলে আর জ্ঞান ফেরাতে পারেনি ওই কিনিকের ডা. আবু বক্কর সিদ্দিক দিপু ও এনেসথেসিয়া (অজ্ঞান) ডাক্তার মনির। তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।
নিহতের পরিবারের লোকজন অভিযোগ করে বলেন, ১৬ দিন আগে স্কুল থেকে বাড়ী ফেরার পথে ইজিবাইকের ধাক্কায় পা ভেঙ্গে যায় ৯ বছরের শিশু আতিকার। স্থানীয়ভাবে ও ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ১৩ দিন চিকিৎসা করার পরে স্থানীয় হাতুরী ডাক্তারের পরামর্শে পায়ের অপারেশন করার জন্য গত ৩ দিন আগে ভর্তি করায় শহরের এলিজা নার্সিং হোম এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে।
জানাযায়, গত শনিবার রাতে শহরের এলিজা নার্সিং হোম এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে পায়ের অপারেশন করতে অপারেশন থিয়েটারে নেন ওই কিনিকের ডাক্তার আবু বক্কর সিদ্দিক দিপু ও এনেসথেসিয়া (অজ্ঞান) ডাক্তার মনির। প্রায় ৩ ঘন্টা অপারেশন থিয়েটারে অস্ত্রোপচারের পর মৃত অবস্থায় বের করে শিশুটিকে। তবে শিশুটি মারা গেছে এমন কথা না জানিয়েই ক্লেনিক থেকে পালিয়ে যায় ডাক্তার আবু বক্কর সিদ্দিক দিপু ওএনেসথেসিয়া (অজ্ঞান) ডাক্তার মনির। পরে ক্লেনিক কর্তৃপক্ষ ও দালাল হাতুরী ডাক্তার নানা ভাবে বুঝিয়ে শিশুটির মরদেহ তুলে দেয় পরিবারের হাতে।  এ ব্যাপারে এলিজা নার্সিং হোম এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের মালিক পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা দারাজ আলী ও অপারেশনকারী ডা: আবু বক্কর সিদ্দিক দিপু ও এনেসথেসিয়া (অজ্ঞান) ডাক্তার মনিরের পলাতক থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি আশিকুর রহমান জানান, শিশুটির পরিবারের লোকজন থানায় এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। ঠাকুরগাঁও সিভিল সার্জন ডা: আবু মো: খায়রুল কবীর জানান, এ ঘটনায় ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঢাকায় ডিডি অফিসেও জানিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
(Visited 1 times, 1 visits today)

সম্পাদক ও প্রকাশক

কাজী জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

ই-মেইল: jahangirbhaluka@gmail.com
নিউজ: bsomoy71@gmail.com

মোবাইল: ০১৭১৬৯০৭৯৮৪

%d bloggers like this: